নাম তন্ময় সানা। আর দশটা বাংলাদেশি ছেলের মতো ক্রিকেটটা তাঁরও প্রথম পছন্দ। কিন্তু পড়ালেখার চাপে এটাকে পেশা হিসেবে নেওয়া হয়ে ওঠেনি তাঁর। তাই বলে তিনি হারও মানেননি, ভিন্নভাবে হলেও ক্রিকেটের সঙ্গে ঠিকই জড়িয়ে গেছেন!

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগে পড়ার সময় নিয়মিত ক্রিকেট, ফুটবল, হ্যান্ডবল খেলতেন তন্ময়। কিন্তু  সে সবের পাট চুকিয়ে জীবিকার তাগিদে স্নাতকোত্তর পর্ব শেষ করেইে ঢুকে পড়নে চাকরিতে। কাজ শুরু করেন বেক্সিমকো ফার্মায়। নিয়ম মেনে সকালে ওঠা, অফিসে যাওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া, সারা দিন অফিস করে আবার বাসায় ফেরা--নিত্যদিনের ছক বাঁধা জীবনে নিজেকে মিলিয়ে ফেলেন তন্ময়। তবু মাথা থেকে ক্রিকেটের ভূত ছাড়াতে পারেননি।

অফিসে তন্ময়ের সঙ্গে পরিচয় হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রজ এবং বর্তমান আইসিসি ইন্টারন্যাশনাল প্যানেল আম্পায়ার মাসুদুর রহমান মুকুলের সঙ্গে। তাঁর সঙ্গে পরিচয়ে নতুন একটা সিদ্ধান্ত নেন তন্ময়--পেশা হিসেবে বেছে নেবেন ক্রিকেট আম্পায়ারিংকে। সুযোগটা পেয়েও যান ২০১৭ সালে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আয়োজিত ডিভিশনাল আম্পায়ার কোয়ালিফায়িং কোর্সে ৯৮% মার্কস পেয়ে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেন। তার ঠিক দুই মাস পর পিএইচডি স্কলারশিপ পেয়ে পাড়ি জমান অস্ট্রেলিয়ায়। শুরু হয় নিউক্যাসল বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি’র গবেষণা। তখনো কিন্তু ভুলে যাননি ক্রিকেট আম্পায়ারিং নিয়ে নিজের স্বপ্নের কথা।

অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটে আম্পায়ারিং করছেন তন্ময় সানা

পরের বছরটা তাঁর সে স্বপ্নের পালে নতুন হাওয়া লাগে। ২০১৮ সালে নিউক্যাসল ডিস্ট্রিক্ট আম্পায়ারিং অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত আম্পায়ারিং কোর্সে অংশ নিয়ে ৯৭% মার্কস পেয়ে নিউক্যাসল এবং নিউ সাউথ ওয়েলস আম্পায়ারিং অ্যান্ড স্কোরার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য হন। সেই থেকে তাঁর নতুন পথচলার শুরু। একাডেমিক পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যরা যখন সাপ্তাহিক ছুটির দিনে অবসর কাটান, তিনি তখন ২২ গজে। প্রখর রোদ্র অথবা তীব্র ঠান্ডা কিছুই তাঁকে বিচলিত করেনি, কারণ এটা যে তাঁর ভালো লাগার জায়গা! ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে তিনি নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার রিপ্রেজেন্টেটিভ আম্পায়ার হওয়ার গৌরবও অর্জন করেন তন্ময়। সর্বশেষ তিনি ২০২০-২১ মৌসুমে আম্পায়ারিংয়ে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ লাভ করেন নিউক্যাসল ডিস্ট্রিক আম্পায়ারিং অ্যাসোসিয়েশনের ‘বিল মেয়ট’ পুরস্কার। এতে সম্মানিত হয় হাজার মাইল দূরের ক্যাঙ্গারুর দেশে লাল-সবুজের পতাকাও।

বর্তমানে তন্ময় প্রথম গ্রেডের খেলায় নিয়মিত আম্পায়ার। স্বপ্ন দেখেন আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করার। সে স্বপ্ন পূরণে দেশের মানুষের দোয়া চান তন্ময়। আর সাকিব-তামিমদের ম্যাচে আম্পায়ারিং করার অদম্য স্পৃহা তাঁর তো আছেই।